বাঘাইছড়িতে চার দিনেও খোঁজ মেলেনি শ্রমিক জমির হোসেনের


আপডেটের সময়ঃ মার্চ ২২, ২০২১


নিখোঁজের চার দিনেও খোঁজ  মেলেনি বাঘাইছড়ি উপজেলার ৪ কিলো প্রশিক্ষন টিলার বাঙালী পাড়ার আবুল কাসেম এর ছেলে শ্রমিক মো জমির হোসেনের (৩৫)।

গত ১৮ মার্চ বৃহস্পতিবার দুপুরে খাবার পর মোটর সাইকেল যোগে দীঘিনালা উপজেলার মেরুং ইউনিয়নে ইউছুফ এর কাছ থেকে কায়িক শ্রমের টাকা আনতে বাজারে গিয়েছিল। তার পর থেকে পরিবারের সাথে  যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। তিনদিন পর মোবাইল ফোনে তার  স্ত্রী সুমি আক্তারকে ফোনে বলেন তাদের তিন জনকে আটকে রাখা হয়েছে। বিকাশে টাকা পাঠনোর জন্য বলে।  এবং ফোনে তাদের মারধর করার আর্তনাদ  ফোনে শুনান তার স্ত্রীকে।  পরে তার স্ত্রীকে তার স্বামী পারসোনাল বিকাশ নং এ  দশ হাজার টাকা পাঠাতে বলেন। জমিরের স্ত্রী   তাদের কথা মতো দশ হাজার টাকা বিকাশ করেন।

সোমবার (২২ মার্চ)  দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে টাকা পাঠনোর পর থেকে তাদের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন  হয়ে পড়ে।

স্ত্রী সুমি আক্তারের  সাথে মোবাইলে ফোনে  যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মেরুং থেকে টাকা আনতে গেলে তার স্বামী  নিখোঁজ হয়ে যান। এর পর থেকে যোগাযোগ বন্ধ ছিল। আজ সকালে হঠাৎ ফোন করে বলে বিকাশে টাকা পাঠাতে এবং তাদের মারধর করার আর্তনাদ  ফোনে শুনান।  তার স্ত্রী বলেন, বিকাশে দশ হাজার টাকা পাঠানোর  পর থেকে তার কোন খোঁজ পাচ্ছি  না।

এদিকে, বাঘাইছড়ি থানার এস আই মোঃ আসাদ জানান, জমিরের পিতা আবুল কাসেম ছেলের সন্ধান চেয়ে বাঘাইছড়ি থানায় একটি সাধারন ডায়েরি করেছেন ।

নিজস্ব প্রতিবেদক-রাঙামাটি, ফোকাস চট্টগ্রাম ডটকম

পরিবার ও দেশকে সুস্থ রাখতে ঘরে থাকুন, করোনা মোকাবেলায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। ঘরের বাইরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখুন। সৌজন্যেঃ দেশচিত্র ডটনেট।