প্রতিবছর গড়ে চার লাখ রোগীকে চক্ষু চিকিৎসা সেবা


আপডেটের সময়ঃ নভেম্বর ১৯, ২০২০


প্রতিবছর গড়ে প্রায় চার লাখ রোগী চিকিৎসাসেবা গ্রহন করছেন বলে মন্তব্য করেছেন অন্তর্জাতিক  চক্ষু বিশেষজ্ঞ, চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালের ম্যানেজিং ট্রাস্টি অধ্যাপক ডা. রবিউল হোসেন।

বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) সকালে চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালের ইনস্টিটিউট অব কমিউনিটি অফথালমোলজি নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপনকালে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

এ  সময় গ্রামাঞ্চলে মানসম্মত উন্নত চিকিৎসা,সেবার পরিধি বৃদ্ধি ও চক্ষু চিকিৎসার জন্য প্রশিক্ষিত মানব সম্পদ উন্নয়নে উৎকৃষ্ট চিকিৎসা কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলতে নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে উল্লেখ করে অধ্যাপক ডা. রবিউল হোসেন বলেন, গ্রামগঞ্জে মাঠ পর্যায়ে চক্ষু চিকিৎসাসেবা ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে এমনকী রোগীদের চক্ষু চিকিৎসার মাধ্যমে তাদের অন্ধত্ব নিবারণ করা ও তাদের দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে দিতে ১৯৭৩ সালে অতি ক্ষুদ্র পরিসরে গ্রামমূখী চক্ষু চিকিৎসা শিবিরের মাধ্যমে চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালের যাত্রা শুরু হয়। পরবর্তীতে সারা দেশে ধীরে ধীরে এর প্রসার লাভ করে। যার ফলে প্রতিষ্ঠার পর থেকে প্রায় ৫০ লাখ মানুষের চোখের চিকিৎসা সফলভাবে সম্পন্ন করে অনন্য প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে সিইআইটিসি। প্রতিবছর গড়ে চার লাখ রোগীকে সেবা দিচ্ছে এ প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠার পর থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চলে চক্ষু চিকিৎসাকে উন্নত পর্যায়ে নেয়ার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় জনবল, প্যারামেডিক, অপটোমেট্টি, চিকিৎসকদের উন্নত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ রোগীকে চিকিৎসা সেবা দেয়া সম্ভব হচ্ছে। আমাদের প্রচেষ্টাকে আরো উন্নত পর্যায়ে নিয়ে যেতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ),চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সমঝোতার মাধ্যমে চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালে উন্নতমানের বিভিন্ন বিভাগের অন্যান্য সাব-স্পেশেলিটি এবং মাঠ পর্যায়ের প্রশিক্ষণ গ্রহনের সুযোগ পাচ্ছে। আজ এই ভবনের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপনের মাধ্যমে গ্রামমূখী  চক্ষু চিকিৎসা সেবা আরো এক ধাপ এগিয়ে যাবে। অনুষ্ঠানে উপ-মহাদেশের চক্ষু বিশেষজ্ঞ ও বাংলাদেশ অন্ধকল্যাণ সমিতির প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক ডা. রবিউল হোসেনকে চক্ষু চিকিৎসার প্রাণ পুরুষ উল্লেখ করে জানানো হয়, ৫০ হাজার স্কায়ার ফিটের ইনস্টিটিউট অব কমিউনিটি অফথালমোলজিন পাঁচ তলা এই ভবনের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপনের ফলে অধ্যাপক ডা.রবিউল হোসেনের দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়নের মাইল ফলক এবং দেশের অনন্য প্রতিষ্ঠান হিসেবে অবদান রাখবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, হাসপাতালের ট্রেজেরার জাহাঙ্গীর আলম খান,ইমপেরিয়ালের প্রজেক্ট ম্যানেজার মুহিবুল ইসলাম, সিইআইটিসি’র মেডিকেল ডিরেক্টর ডা. কামরুল ইসলাম,সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. রাজীব হোসেন,এক্সজিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার একে এম এ খালেদ, ডেপুটি ম্যানেজার (এডমিন) মো. রোকনুন চৌধুরী, সহকারী ম্যানেজার মো. সাজিউল ইসলাম প্রমূখ।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফোকাস চট্টগ্রাম ডটকম

পরিবার ও দেশকে সুস্থ রাখতে ঘরে থাকুন, করোনা মোকাবেলায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। ঘরের বাইরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখুন। সৌজন্যেঃ দেশচিত্র ডটনেট।