তিন জনে ৩শ’চুরি: ২৭ লক্ষ টাকাসহ দুধর্ষ চোর গ্রেফতার


আপডেটের সময়ঃ মে ২৩, ২০২১


চট্টগ্রাম মহানগরের দুধর্ষ তিন চোরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ সময় চুরির ঘটনায় ব্যবহৃত সিএনজি অটোরিকশা ও নগদ ২৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

শনিবার দুপুরে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) দক্ষিণ বিভাগের অফিসে সংবাদ সম্মেলনে উপ-কমিশনার বিজয় বসাক এসব তথ্য দেন।

গত সাত বছর ধরে চট্টগ্রাম নগরের আগ্রাবাদ-জামালখানসহ বাণিজ্যিক এলাকায় বেছে বেছে অফিসগুলোতে চুরি করতো সংঘবদ্ধ একটি চোর চক্র। অফিসে থাকা সিসিটিভি ক্যামেরা এড়াতে ডিভিআর মেশিন খুলে বালতির পানিতে চুবিয়ে রাখতো। এভাবে গেল সাত বছরে প্রায় ৩শ চুরি সফলভাবে সম্পন্ন করেছে চক্রটি। তবে এবার ডিভিআর মেশিন ভেবে বালতিতে চুবিয়ে রেখেছিল ডিস কানেকশন মেশিন। চুরির প্রায় ২৭ লাখ টাকাসহ এতেই ধরা পড়লো পুলিশের হাতে।

পেশায় পুরোদস্তুর চোর হলেও রমজান মাসে চুরি করতেন না বলে পুলিশকে জানিয়েছে তারা।গ্রেফতার তিনজন হলেন, চট্টগ্রাম নগরের আকবরশাহ থানার বিশ্বকলোনী কাঁচাবাজার এলাকার মো. মনির হোসেন (৪০), চট্টগ্রাম নগরের খুলশী থানার লালখান বাজার এলাকার মো. মাহফুজ (৩০), চট্টগ্রাম নগরের আকবরশাহ থানার বিশ্বকলোনী কাঁচাবাজার এলাকার খুকু মনি ওরফে খুকু বেগম (২৮)। এদের মধ্যে মনির ও খুকু বেগম স্বামী-স্ত্রী এবং মাহফুজ নগর চষে বেড়ানো ওই সিএনজি অটোরিকশার ড্রাইভার।

উপ-কমিশনার বিজয় বসাক বলেন, প্রতিদিন ঘড়ির কাটা রাত সাড়ে ১১টায় পৌঁছালে একটি সিএনজি অটোরিকশা চষে বেড়ায়  জামালখান মোড়, আন্দরকিল্লা, চকবাজার, আগ্রাবাদসহ চট্টগ্রাম নগরের অফিস পাড়াগুলো। টার্গেটে থাকে ব্যাংক, অফিস, স্কুলসহ বিভিন্ন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠন। ছোট-বড় সব প্রতিষ্ঠানের জানালার গ্রিল মাত্র এক মিনিটে ভেঙে লুটে নেন নগদ টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী, ঘিয়ের কৌটা, দুধের প্যাকেটসহ যা হাতের কাছে পান তাই! আর বাড়িতে পৌঁছে সেই চোরাই মালামাল নিরাপদে রাখতে জমা দিতেন স্ত্রীর হাতে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৮ মে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের জুবলী রোড শাখার অফিসে গ্রিল কেটে চুরির চেষ্টা এবং একই বিল্ডিংয়ের বাংলাদেশ সাপ্লাইয়ার্সের ৪র্থ তলার অফিসের গ্রিল কেটে ও লকার ভেঙে চুরি হয় সাড়ে ২৭ লাখ টাকা। আর এ ঘটনার তদন্তে নেমে সন্ধান মেলে এ দুধর্ষ চোর চক্রের।

সম্মেলনে পুলিশের কর্মকর্তারা জানান, গ্রেফতার মনির হোসেন একজন পেশাদার চোর। দীর্ঘ ৭ বছর ধরে তিনি চুরির পেশায় জড়িত। এর পাশাপাশি নগরের বিশ্বকলোনী শাপলা গ্যাস লাইন এলাকায় তার একটি ভাঙ্গারির দোকান আছে। চোরাই মালামাল ওই ভাঙ্গারির দোকানে বিক্রি হতো। তাছাড়া আন্তঃজেলা চোর আমির তার আপন বড় ভাই। অন্যদিকে এ চক্রের সদস্য মাহফুজ ছিলেন সিএনজি অটোরিক্সা চালানোর দায়িত্বে। চুরিতে ধরা পড়ে গেলে ভয়ভীতি দেখিয়ে বাঁচার জন্য সিএনজিতে দু’টি চাপাতি রেখেছিলেন তারা। মূলত ড্রাইভার মাহফুজ দিনে ঘুমাতেন আর রাতে বের হতেন চুরির কাজে। এই দুধর্ষ চোর চক্রের সবচেয়ে সহজ কাজের দায়িত্বে ছিলেন মনিরের স্ত্রী খুকু মনি। চোরাই হওয়া মালামাল আর নগদ টাকা নিজের বাসায় লুকিয়ে রাখতেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে সিএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার বিজয় বসাক জানান, দীর্ঘ ৭ বছরে ২৫০ থেকে ৩০০টি চুরির কথা স্বীকার করেছেন মনির। সম্প্রতি তার চুরির তালিকায় রয়েছে। কোতোয়ালী থানার নজীর আহমদ রোডের একটি বেসরকারি অফিস থেকে ২০ হাজার টাকা চুরি, জামালখান এলাকার একটি কম্পিউটার একাডেমি থেকে ল্যাপটপ চুরি, রাজাপুকুর লাইনের ৩টি কাগজের গোডাউন থেকে ৫০ হাজার টাকা, চকবাজারের একটি রেস্টুরেন্ট থেকে ৩৬ হাজার টাকা, ১টি এলইডি মনিটর, ১২ কেজি দুধের প্যাকেট, ১৩ প্যাকেট ঘি, আগ্রাবাদের একটি অফিস থেকে মূল্যবান জিনিস চুরিসহ অসংখ্য চুরির ঘটনা। তবে গত ১৮ মে বাংলাদেশ সাপ্লাইয়ার্সের অফিসে ডিভিআর মেশিন ভেবে ডিশ কানেকশন মেশিন পানিতে চুবিয়ে রাখে। কিন্তু ওই অফিসটির ডিভিআর মেশিন অন্য জায়গায় থাকার কারণে মনিরকে চিহ্নিত করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ।

এদিকে বাংলাদেশ সাপ্লাইয়ার্সের ও ভবন মালিক কাইজার আবুওয়াল বলেন, গত ১৮ মে সন্ধ্যা ৭ টায় আমি অফিস বন্ধ করে বাসায় চলে যাই। পরদিন জানতে পারি আমাদের ৩ তলায় মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের গ্রিল কেটে কেউ প্রবেশ করেছে। কিন্তু সেখান থেকে কিছু চুরি হয়নি। অন্যদিকে ৪ তলায় আমার অফিসে (বাংলাদেশ সাপ্লাইয়ার্স) এসে দেখি জানালার গ্রিল কাটা। লোহার সিন্দুক, কাগজ পত্র সব অগোছালো। সিন্ধুকে রাখা ২৭ লাখ ৫০ হাজার টাকাও নেই। মাত্র ১৬ ইঞ্চি গ্রিল কেটে চোর কিভাবে ঢুকেছে বুঝতে পারছিলাম না। পরে আমি পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছি।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফোকাস চট্টগ্রাম ডটকম

পরিবার ও দেশকে সুস্থ রাখতে ঘরে থাকুন, করোনা মোকাবেলায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। ঘরের বাইরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখুন। সৌজন্যেঃ দেশচিত্র ডটনেট।