চট্টগ্রাম আর্চডাইয়োসিসের মেট্রোপলিটান আর্চবিশপ লরেন্স সুব্রত হাওলাদার


আপডেটের সময়ঃ মে ২৩, ২০২১


চট্টগ্রাম ব্যুরো: অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ক্যাথলিক খ্রিস্টানদের চট্টগ্রাম আর্চডাইয়োসিসের মেট্রোপলিটান আর্চবিশপ পদে লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি অধিষ্ঠান গ্রহণ করেছেন শনিবার সকাল ৯টায়।

ভাটিকান সিটি হতে ক্যাথলিক খ্রিস্টানদের প্রধান ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস ১৯ ফেব্রুয়ারি তারিখে তাকে চট্টগ্রামের আর্চবিশপ পদে নিযুক্ত করেন। আর্চবিশপ নিযুক্ত হওয়ার পূর্বে তিনি ২০১৫ খ্রিস্টাব্দ থেকে বরিশাল ডাইয়োসিসের বিশপ পদে দায়িত্ব পালন করছিলেন। ২০০৯ থেকে ২০১৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত চট্টগ্রাম ডাইয়োসিসের সহকারী বিশপ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি।

উল্লেখ্য যে খ্রিস্টভক্তদের উপযুক্ত ও নিবিড় পালকীয় সেবাদানের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশে কাথলিক খ্রিস্টানদের ৮টি ধর্মাঞ্চল আছে, যেগুলো হলো: ঢাকা, চট্টগ্রাম, দিনাজপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, খুলনা, সিলেট ও বরিশাল। এর মধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রাম হলো মেট্রোপলিটান আর্চডাইয়োসিস এবং অন্যগুলো ডাইয়োসিস। প্রতিটি আর্চডাইয়োসিস এবং ডাইয়োসিস এর অন্তর্ভূক্ত আছে বেশ কয়েকটি প্যারিশ বা ধর্মপল্লী। প্রতিটি ধর্মপল্লীর ধর্মযাজক ‘প্যারিস প্রিস্ট’ নামে অভিহিত। আর্চডাইয়োসিসর এর প্রধান ধর্মযাজক একজন ‘আর্চবিশপ’ এবং ডাইয়োসিস এর প্রধান ধর্মযাজক হলেন ‘বিশপ’। চট্টগ্রাম ডাইয়োসিস এর এলাকা বাংলাদেশের ৯টি প্রশাসনিক জেলা জুড়ে বিস্তৃত। জেলাগুলো হলো: চাঁদপুর, লক্ষীপুর, নোয়াখালী, ফেনী, চট্টগ্রাম, খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি, বান্দরবান এবং কক্সবাজার। এই জেলাগুলোতে কাথলিক খ্রিস্টানদের প্যারিশ বা চার্চ আছে ১১টি এবং সাব-প্যারিশ আছে ৫টি।

আর্চবিশপ লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি ১৯৬৫ খ্রিস্টাব্দের ১১ সেপ্টেম্বর তারিখে বরিশাল সদরের নবগ্রাম রোড, গোলপুকুরপাড়ে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৮২ খ্রিস্টাব্দে এসএসসি, ১৯৮৪ খ্রিস্টাব্দে এইচএসসি এবং ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন। ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দে তিনি একজন ক্যাথলিক যাজক পদে অভিষিক্ত হন। ২০০০ থেকে ২০০৪ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত ফাদার লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি ইতালীর রোমে অবস্থিত পন্টিফিকাল গ্রেগরিয়ান ইউনিভার্সিটিতে মনোবিজ্ঞান, আধ্যাত্মিকতা ও কাউন্সিলিং বিষয়ে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ শেষে লাইসেনসিয়েট ডিগ্রী অর্জন করেন।

এক নজরে আর্চবিশপ লরেন্স সুব্রত হাওলাদার: আর্চবিশপ লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি ১৯৬৫ খ্রিস্টাব্দের ১১ সেপ্টেম্বর বরিশাল সদর উপজেলার সাধু পিতরের ধর্মপল্লীর অন্তর্গত নবগ্রাম রোড, গোলপুকুড় পাড়ে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি স্বর্গীয় স্টিফেন ললিত হাওলাদার ও মিসেস তেরেজা হাওলাদার এর চতুর্থ সন্তান। আর্চবিশপ সুব্রত ১৯৮২ খ্রিস্টাব্দে এসএসসি এবং ১৯৮৪ খ্রিস্টাব্দে এইচএসসি পাশ করেন। ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দে বরিশাল বি.এম. কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন। ১৯৮৮ খ্রিস্টাব্দের ২ আগস্ট পবিত্র ক্রুশ সংঘে প্রথম ব্রত গ্রহন লাভ করে ১৯৯৩ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত ঢাকার পবিত্র আত্মা উচ্চ সেমিনারিতে দর্শন ও ঐশতত্ত্ব বিষয়ে অধ্যয়ন করেন। ১৯৯৩ খ্রিস্টাব্দের ৬ আগস্ট তিনি আজীবন সন্ন্যাসব্রত গ্রহণ করেন। ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দের ফেব্রুয়ারিতে ডিকন পদে অভিষেক লাভ করেন আর্চবিশপ সুব্রত। ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দের ৩১ ডিসেম্বর স্বর্গীয় বিশপ যোয়াকিম রেজারিও, সিএসসি তাকে যাজক পদে অভিষেক দান করেন। যাজক হিসেবে আর্চবিশপ লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি’র কর্মজীবনের প্রথম ভাগ কেটেছে ময়মনসিংহ ডাইয়োসিসে। তিনি মরিয়ম নগর ও পীরগাছা ধর্মপল্লীতে সহকারী পাল-পুরোহিত জলছত্র সেন্ট পল মাইনর সেমিনারির পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০০০ থেকে ২০০৪ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত ফাদার লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি ইতালীর রোমে অবস্থিত পন্টিফিকাল গ্রেগরিয়ান ইউনিভার্সিটিতে মনোবিজ্ঞান, আধ্যাত্মিকতা ও কাউন্সিলিং বিষয়ে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ শেষে মাস্টার্স ও লাইসেনশিয়েট ডিগ্রী অর্জন করেন। দেশে ফিরে তিনি ২০০৪ থেকে ২০০৯ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বরিশালের পবিত্র ক্রুশ সংঘের নব্যালয় পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। ০৭ মে ২০০৯ খ্রিস্টাব্দ তারিখে ফাদার লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি পুণ্য পিতা পোপ ষোড়শ বেনেডিক্ট কর্তৃক চট্টগ্রাম কাথলিক ডাইয়োসিসের প্রথম সহকারী বিশপরূপে মনোনীত হন।

বিশপ লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি ০৩ জুলাই ২০০৯ খ্রিস্টাব্দ তারিখে বরিশালের সাধু পিতরের গির্জায় বিশপ পদে অভিষেক লাভ করেন। প্রধান অভিষেকদানকারী হিসেবে বিশপ প্যাট্রিক ডি’রোজারিও, সি.এস.সি. এবং সহ-অভিষেকদানকারী হিসেবে ভাটিকান রাষ্ট্রদূত আর্চবিশপ যোসেফ স্যালভাদর মারিনো ও আর্চবিশপ পলিনুস কস্তা উপস্থিত ছিলেন। চট্টগ্রামের সহকারী বিশপরূপে তিনি দীর্ঘ সময় কাজ করেছেন। বরিশাল ডাইয়োসিস গঠিত হওয়ার আগে বিস্তৃত চট্টগ্রাম আর্চডাইয়োসিসের তৎকালীন তিনটি অঞ্চল- বরিশাল, চট্টগ্রাম সমতল ও চট্টগ্রাম পার্বত্য অঞ্চল এর বিভিন্ন ধর্মপল্লীতে বিশপ লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি অসংখ্যবার পালকীয় সফর করেছেন। বিশেষ করে পার্বত্য অঞ্চলের দুর্গম পাড়াগুলোতে তিনি অসংখ্যবার সফর করেছেন এবং সেখানকার অবহেলিত মানুষদের সুখ-দুঃখের কথা শুনেছেন।

২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ খ্রিস্টাব্দ পুণ্য পিতা পোপ ফ্রান্সিস বিশপ লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সি.এস.সি.’কে নবগঠিত বরিশাল কাথলিক ডাইয়োসিসের প্রথম বিশপরূপে মনোনীত করেন। পরবর্তী বছরের ২৯ জানুয়ারি তিনি বরিশালের সাধু পিতরের ক্যাথিড্রাল গির্জায় নবসৃষ্ট বরিশাল ক্যাথলিক ডাইয়োসিসের প্রথম বিশপরূপে অধিষ্ঠিত হন। বিশপ লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি’র পালকীয় নেতৃত্বে বরিশাল ডাইয়োসিসে ব্যাপক উন্নয়ন ঘটেছে। বরিশাল ডাইয়োসিসে নতুন নতুন প্রৈরিতিক ক্ষেত্র সৃষ্টি, অর্থনৈতিক সক্ষমতা বৃদ্ধিতে বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণ এবং স্বাস্থ্য ও শিক্ষা খাতে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রম এর মধ্য দিয়ে তিনি বরিশাল ডাইয়োসিসের জন্য মজবুত ভিত্তি প্রস্তুত করেছেন।

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১ খ্রিস্টাব্দ তারিখে পুণ্য পিতা পোপ ফ্রান্সিস বিশপ লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সি.এস.সি.’কে চট্টগ্রাম কাথলিক আর্চডাইয়োসিসের আর্চবিশপরূপে মনোনীত করেন। আজ ২২ মে ২০২১ খ্রিস্টাব্দ তারিখ, শনিবার আর্চবিশপ লরেন্স সুব্রত হাওলাদার, সিএসসি অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে চট্টগ্রামের ৬ষ্ঠ বিশপ ও ২য় আর্চবিশপরূপে পবিত্র জপমালা রাণী ক্যাথিড্রাল গির্জায় অধিষ্ঠান গ্রহণ করতে যাচ্ছেন।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফোকাস চট্টগ্রাম ডটকম

পরিবার ও দেশকে সুস্থ রাখতে ঘরে থাকুন, করোনা মোকাবেলায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। ঘরের বাইরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখুন। সৌজন্যেঃ দেশচিত্র ডটনেট।