চট্টগ্রামে ৭০ কোটি টাকার টাগেট নিয়ে প্রতিষ্ঠা হচ্ছে ক্যান্সার হাসপাতাল


আপডেটের সময়ঃ ফেব্রুয়ারি ২, ২০২১


চট্টগ্রাম নগরে প্রায় ৭০ লাখ মানুষের বসবাস। প্রতিটি মানুষ যদি ১০০ টাকা করে ক্যান্সার হাসপাতাল অ্যান্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউটের জন্য দান করেন, তাহলে এক মুহূর্তেই এ হাসপাতালের জন্য ৭০ কোটি টাকার একটি তহবিল হয়ে যাবে।

মঙ্গলবার (২ ফেব্রুয়ারী) চট্টগ্রাম সিনিয়রস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ক্যান্সার হাসপাতাল বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব মো. রেজাউল করিম আজাদ।

সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মো. রেজাউল করিম আজাদ বলেন, মরণব্যাধি ক্যান্সার সারা দেশে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। শিশু কিশোর, যুবক-বৃদ্ধ, নারী-পুরুষ সব বয়সের মানুষ ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছে। চট্টগ্রামে সরকারি বেসরকারি পর্যায়ে ক্যান্সারের পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসার ব্যবস্থা নেই। এ কারণে এখানকার ক্যান্সার রোগীদের চিকিৎসার জন্য বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ঢাকার ওপর নির্ভর করতে হয়। তিনি বলেন, কিন্তু অধিকাংশ রোগীর পক্ষেই ঢাকায় গিয়ে চিকিৎসা করানো সম্ভব হয় না। চিকিৎসার অভাবে অনেক রোগী অকালে প্রাণ হারাচ্ছেন। অথচ চিকিৎসা বিজ্ঞানের উৎকর্ষের কারণে যথা সময়ে প্রয়োজনীয় চিকিৎসার মাধ্যমে ক্যান্সার রোগীও ভালো হচ্ছে। তারা স্বাভাবিক জীবন-যাপন করতে পারেন। বিষয়টি অনুধাবন করে আমরা ক্যান্সার হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছি।

মো. রেজাউল করিম আজাদ জানান, বর্তমানে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের ক্যান্সার বিভাগে একদল বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা সেবা চলছে। কিন্তু চট্টগ্রাম বিভাগের জনসংখ্যার তুলনায় বর্তমানে বিদ্যমান সেবা ব্যবস্থা বড়ই অপ্রতুল। বর্তমানে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের ক্যান্সার বিভাগে প্রতিদিন বহির্বিভাগে ৩০ জন এবং অন্তঃবিভাগে ভর্তি হচ্ছে ১০ শয্যায় ১০ জন। অথচ প্রতিদিনই শয্যার অভাবে ভর্তি করা যাচ্ছে না অনেক রোগীকে।  তিনি বলেন, ইতোমধ্যে এ হাসপাতালের ক্যান্সার বিভাগে কেমোথেরাপি গ্রহণ করেছে ৪ হাজার ১৪২ জন রোগী এবং অন্তঃ ও বহির্বিভাগে মোট ৬ হাজার ৭৭৬ জন রোগী চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেছেন। তাই বর্তমানে ক্যান্সার রোগীর বৃদ্ধির হারের বাস্তবতায় চট্টগ্রামে একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ ক্যান্সার হাসপাতাল অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। কিন্তু একটি বিশেষায়িত হাসপাতাল প্রতিষ্ঠায় প্রধান নিয়ামক হলো অর্থ।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ক্যান্সার হাসপাতাল বাস্তবায়ন কমিটির চেয়ারম্যান ও দৈনিক আজাদী সম্পাদক এম এ মালেক। বক্তব্য দেন, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান, ক্যান্সার হাসপাতাল বাস্তবায়ন কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান এস এম আবু তৈয়ব, হাসপাতাল ভবনের অনারারি প্রজেক্ট পরিচালক প্রকৌশলী আলী আশরাফ, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট সৈয়দ মোরশেদ হোসেন, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, সাংবাদিক হাসান আকবর, ডা. আঞ্জুমান আরা ইসলাম, ডা. আরিফুল আমিন ও ডা. শেফাতুজ্জাহান প্রমূখ।

সম্মেলনে জানানো হয় চট্টগ্রামে ক্যান্সার হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হচ্ছে আগামীকাল বৃহস্পতিবার। চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের উদ্যোগে এ ক্যান্সার হাসপাতালে ভূমি মন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন বলে কথা রয়েছে।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফোকাস চট্টগ্রাম ডটকম

পরিবার ও দেশকে সুস্থ রাখতে ঘরে থাকুন, করোনা মোকাবেলায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। ঘরের বাইরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখুন। সৌজন্যেঃ দেশচিত্র ডটনেট।