চট্টগ্রামে যুবক হত্যাকাণ্ডের মূলহোতাসহ গ্রেফতার ৮, পাল্টাপাল্টি মামলা


আপডেটের সময়ঃ মার্চ ১৯, ২০২১


চট্টগ্রাম নগরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে যুবক খুনের ঘটনায় মূল হোতাসহ ৮ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আগ্রবাদে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে মোটরসাইকেল র‌্যালি নিয়ে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে হাশেম খান (৩৫) নামে এক সাউন্ড সিস্টেম মেকানিক নিহতের ঘটনায় মূলহোতা সোহাগ (২২)সহ ৮ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৮  মার্চ) সকালে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। অভিযানে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিটিও উদ্ধার করে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- সোহাগ (২২), মো. মহসিন (৩৪), সাহাব উদ্দিন (২৬), মো. মাসুদ (৪১), মো. আলী আকবর প্রকাশ আলী (৬০), মাসুদ রানা (২৮), মো. হেমায়েত প্রকাশ অপু (২৫) এবং মো. রাজু (১৫)।

এদিকে মোটর সাইকেলের মহড়া নিয়ে বিরোধের জেরে খুনের ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছে। নিহতের স্ত্রী এবং যার সঙ্গে ঘটনার সূত্রপাত তার মা বাদী হয়ে গত বুধবার রাতে নগরীর ডবলমুরিং থানায় মামলা দুটি করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ডবলমুরিং থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন জানিয়েছেন, নিহত হাশেমের স্ত্রী জরিনা বেগমের দায়ের করা মামলার এজাহারে ১৪ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া আরও পাঁচ-ছয় জনকে হত্যা মামলার আসামি করা হয়েছে। ঘটনার সূত্রপাতকারী মো. মহসিনের মা মাফিয়া বেগমের দায়ের করা মামলার এজাহারে দুজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞাতনামা আরও ১০-১৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

জানা গেছে, গত বুধবার দুপুরে আগ্রাবাদের রঙ্গীপাড়া থেকে পিকআপ ভ্যানে সাউন্ডবক্স বাজিয়ে এবং মোটরসাইকেল ও বাইসাইকেলের মহড়া দিয়ে একদল কিশোর-তরুণ-যুবক আসছিল জাম্বুরি পার্কের দিকে। তাদের মহড়া সড়ক ও জনপথ বিভাগের অফিসের সামনে আসার পর ওই সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এসময় রিকশায় করে ওই এলাকা অতিক্রম করা স্থানীয় যুবক মহসিন পথে আটকে থাকেন। তিনি এর প্রতিবাদ করলে প্রথমে ঝগড়া ও পরে স্থানীয়দের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ বেধে যায়। এতে একজন নিহত ও দু’জন আহত হন। নিহত হাশেম খান (৩৫) আগ্রাবাদের রঙ্গীপাড়া এলাকার বাসিন্দা। বাড়ি গাইবান্ধা জেলায়। পেশায় সাউন্ডবক্সের মেকানিক ছিলেন। সংঘর্ষের পর পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মো. মহসিনসহ ২৪ জনকে আটক করে। পরে মহসিনের ভাই মো. সোহাগকে (২৮) নগরীর সিঅ্যান্ডবি কলোনি এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা হয়, যিনি মহসিনকে মারতে দেখে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করেছিলেন এবং এতে আহত হয়ে হাশেম মারা যান। এছাড়া গত বুধবার রাতে নগরীর বন্দর এলাকায় অভিযান চালিয়ে স্থানীয় মো. মাসুদকে (৪১) গ্রেফতার করা হয়, যিনি মহসিনের পক্ষে মারামারি করতে গিয়েছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ডবলমুরিং থানার উপপরিদর্শক (এসআই) অর্ণব বড়ুয়া জানান, আটকদের মধ্যে ১০ জনকে মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফোকাস চট্টগ্রাম ডটকম

পরিবার ও দেশকে সুস্থ রাখতে ঘরে থাকুন, করোনা মোকাবেলায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। ঘরের বাইরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখুন। সৌজন্যেঃ দেশচিত্র ডটনেট।