চট্টগ্রামে ইপিজেড থানার এসআই’র বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ


আপডেটের সময়ঃ সেপ্টেম্বর ৭, ২০২০


নগরীর ইপিজেড থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রুবেল দাশগুপ্তের বিরুদ্ধে হয়রানি ও এনকাউন্টারে প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ করেছেন কৈবল্যধাম আবাসিক এলাকার (বিশ্বকলোনী) বাসিন্দা ব্যবসায়ী উত্তম কুমার কর্মকার।

রোববার (৬ সেপ্টেম্বর ) সকালে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের এস রহমান হলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্যে উত্তম কর্মকার বলেন, আকবরশাহ থানাধীন কৈবল্যধাম আবাসিক এলাকার (বিশ্বকলোনি) ব্লক এইচ প্লট নং-১৭৫ ক্রয় করে দ্বিতল ভবন নির্মাণ করে বসবাস করছি। একই ব্লকের ৬৪নং প্লটের মালিক স্বপন দাশগুপ্ত। আমি আমার প্লটের নির্মাণকাজ শুরুর পর থেকে স্বপন দাশগুপ্ত ও তার ছেলে এসআই রুবেল দাশগুপ্ত ও তার ভাই জুয়েল দাশগুপ্ত নানাভাবে হয়রানি, অত্যাচার নির্যাতন করে আসছে। ক্ষমতার অপব্যবহার করে অন্যান্য ভবনের বাসিন্দাদেরও নানাভাবে হয়রানি করে আসছে। তাদের বিরুদ্ধে কৈবল্যধাম আবাসিক কল্যাণ সমিতিসহ প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ে লিখিত আবেদন করলে তারা কিছুদিন নিরব থাকে। গত ২৯ আগস্ট স্বপন দাশগুপ্তের বাসার পানি আমার বাসার গেটে পড়লে তা নিয়ে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে এসআই রুবেল আমাকে ও আমার স্ত্রীকে মারধর করেন। পরে আমরা চমেক হাসপাতালে চিকিৎসা নিই। এ ঘটনায় আকবর শাহ থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা না নিয়ে উল্টো এসআই রুবেলের ভাই জুয়েলের মাধ্যমে একটি মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে আমাদের থানায় আটকে রাখা হয়। পরদিন ৩১ আগস্ট আমাকে আটক দেখিয়ে আদালতে তোলা হয়। ওইদিনই আমি জামিনে মুক্ত হই। ১ সেপ্টেম্বর আমি আমার স্ত্রীকে জামিনে মুক্ত করি। পরে থানায় মামলা না নেয়ায় ২ সেপ্টেম্বর আদালতে তাদের বিরুদ্ধে একটি মামলা (১১৩/২০২০) দায়ের করি। আমি এসআই রুবেল ও তার পরিবারের হয়রানি থেকে মুক্তি পেতে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কনিকা কর্মকার, পার্থ কর্মকার, শ্রেয়া কর্মকার, বিশ্বনাথ পাল, শীতল কর্মকার, চন্দন রায়, অপু চৌধুরী প্রমুখ।

নিউজ ডেস্ক, ফোকাস চট্টগ্রাম ডটকম

পরিবার ও দেশকে সুস্থ রাখতে ঘরে থাকুন, করোনা মোকাবেলায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। ঘরের বাইরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখুন। সৌজন্যেঃ দেশচিত্র ডটনেট।