কমিউনিটি সেন্টার খুলে না দিলে আমরণ অনশন কর্মসূচী ঘোষনা

১৫ মাস ধরে কনভেনশন সেন্টার গুলো বন্ধ

আপডেটের সময়ঃ জুন ১২, ২০২১

চট্টগ্রাম কমিউনিটি সেন্টার মালিক সমিতি বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ১৭ জুনের মধ্যে কমিউনিটি সেন্টার খুলে না দিলে আমরণ অনশন কর্মসূচী ঘোষনা করে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন চৌধুরী দুলাল।

সভাপতি হাজী মোঃ সাহাবউদ্দিন সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন গত ১৫ মাস ধরে কনভেনশন সেন্টার গুলো বন্ধ করে রেখেছে সরকার, এরিমধ্যে সরকার স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠানসহ সকল ধরনের হোটেল রেস্টুরেন্ট, খোলারাখার সিদ্ধান্ত নিলেও, আমরা কমিউনিটি সেন্টার ব্যবসায়ী ও এর সাথে সম্পর্কৃত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুলা সরকারের নজরের বাহিরে রয়েছে। আমরা জানিনা আমাদের প্রতি কেন এত কঠোরতা? আমাদের এই মানবতের জীবন থেকে বেরিয়ে আসার জন্য সরকারের সু-নজর দেয়ার অত্যন্ত জরুরী বলে মনে করছি।

লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয় যে, ৬ জুন লকডাউনের সর্বশেষ সরকারী আদেশে খাবার দোকান, হোটেল-রেস্তোরায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে অর্ধশত ভাগ আসন ব্যবহার করে সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা রাখা যাবে। অনুরুপ ভাবে ডেকোরেশন ও কমিউনিটি সেন্টার মালিক, শ্রমিক কর্মচারী ও সংশ্লিষ্টদের জীবন-জীবিকা নির্বাহের জন্য কমিউনিটি সেন্টার খুলে দেয়ার দাবী জানানো হয়।

সমিতির সভাপতি আরো বলেন, আপনাদেন মাধ্যমে সরকার প্রধানকে জানাতে চাই যে, বৈশিক মহামারী (কোভিড-১৯) এর প্রথম ধাপে পরিস্থিতি যখন ভয়াবহ পরিস্থিতি দেখা যায় তখন প্রশাসনের আহবানে সকল কমিউনিটি সেন্টার গুলো সরকারের স্বাস্থ্য সংশিষ্ট সকল কাজে ব্যবহার করার জন্য ফ্রি-তে উন্মক্ত করে দিয়ে সরকারকে এ কঠিন সময়ে সহযোগিতা করেছিল কমিউনিটি সেন্টারের মালিকগণ এতে পুলিশ, বিজিবি, সেনাবাহিনী, র‌্যার এর বাহিনী আইসোলিশনের জন্য এবং সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে আবাসের জন্য কমিউনিটি সেন্টার গুলো ব্যবহৃত হয়। এ ছাড়াও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শক্রমে সরকারী অংগ সংগঠন আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ এবং ছাত্রলীগ প্রতিটি কমিউনিটি সেন্টার গুলোতে ত্রাণ বিতরণ ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীদের মাঝে খাবার পরিবেশনের জন্য রান্নাঘর গুলো দীর্ঘ পাঁচ মাস যাবত ব্যবহার করা হয়েছিল।

উপরোক্ত কাজে কমিউনিটি সেন্টার গুলো সরকারের অঙ্গ সংগঠনের কাজে ব্যবহার হবার বিনিময়ে কোন আর্থিক সুবিধা কমিউনিটি সেন্টার মালিকগণ গ্রহণ করেননি।

শুধু বিভিন্ন সংস্থা বিনামূল্যে কমিউনিটি সেন্টার ব্যবহারের জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে প্রত্যয়ন পত্র দিয়েছেন মালিকদের। সভাপতি আরো বলেন জাতীর যে কোন দুর্যোগে সরকারের প্রয়োজনে কমিউনিটি সেন্টার ব্যবহারের সুবিধা প্রদানে সার্বিক সহযোগিতা দিতে মালিক সমিতি আগ্রহী ও সদয় সম্মত থাকবেন।

লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয় যে, মালিক-শ্রমিকগণ এখন মানবেতর জীবনযাপন করছে। কোভিড-১৯ এর কারনে সরকারের নির্দেশ ক্রমে কমিউনিটি সেন্টার লাগাতার একবছর যাবত বন্ধ থাকায় এই ব্যবসার সাথে নির্ভরশীল ফুল ব্যবসায়ী, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট, আলোকসজ্জা, সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী, বাবুর্চি বয়-বেয়ারাসহ প্রান্তীক পর্যায়ের অনেক পেশার লোক ও হত দরিদ্র জনগোষ্ঠী আজ সম্পূর্ন বেকার হয়ে হতাশায় জীবন যাপন করেছে। সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য আরো বলেন যে বর্তমানে সামাজিক ভাবে বিবাহ অনুষ্ঠান বন্ধ থাকায় সমাজে নৈতিক অবক্ষয় দেখা দিয়েছে। মালিক সমিতির দাবি জরুরী বিত্তীতে কমিউনিটি সেন্টার খুলে দিয়ে সমাজের অস্থিতিশীল পরিবেশ থেকে অবিভাকদের রক্ষা করতে কমিউনিটি সেন্টার খুলে দেয়ার বিকল্প নেই বলে মত প্রকাশ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে বৈশিক করোনা কালে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত প্রনোদনার তহবিল থেকে প্রনোদনা প্যাকেজের সাহায্যের দাবি জানানো হয়। তারা বৈশিক করোনা মেয়াদের ব্যাপক সুদ ও মওকুফ চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।

সংবাদ সম্মেলন কমিউনিটি সেন্টার মালিক সমিতির সালেহ আহমেদ সুলেমান- সভাপতি, বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি, চট্টগ্রাম জেলা শাখা, হাজী মোহাম্মদ সাহাবউদ্দিন- সভাপতি, চট্টগ্রাম কমিউনিটি সেন্টার মালিক সমিতি, সাইফুদ্দিন চৌধুরী দুলাল- সাধারণ সম্পাদক, সাজেদুল আলম মিল্টন- সাধারণ সম্পাদক, চট্টগ্রাম ডেকোরেটার্স মালিক সমিতি, আব্দুল মালেক- সিনিয়র সহ-সভাপতি, মোহাম্মদ আবদুল্লাহ- সহ-সভাপতি, নুরুল ইসলাম- সহ-সভাপতি, কুমার রাজন দাশ গুপ্ত- যুগ্ম সম্পাদক, মোহাম্মদ সেলিম- যুগ্ম সম্পাদক, এস.এম. মোস্তফা- সাংগঠনিক সম্পাদক, জিসু কৃষ্ণ দে- সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক, খোকন দেব নাথ- যুগ্ম সম্পাদক, মোবারক হোসেন- উপদেষ্টা, মোহাম্মদ ইউসুফ- রোজ গার্ডেন, মোঃ গিয়াস উদ্দিন- লাকী স্কয়ার, মনজুরুল ইসলাম (রায়হান)- সি.ই.ও, চিটাগাং ইভেন্টস, মোহাম্মদ আলী আক্তার- কে স্কয়ার, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক, মোহাম্মদ আক্তারুল ইসলাম- ওয়েসর্টান পাক-দপ্তর সম্পাদক, কাইছারুল ইসলাম রনি- যমুনা স্কয়ার প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

নিউজ ডেস্ক।

পরিবার ও দেশকে সুস্থ রাখতে ঘরে থাকুন, করোনা মোকাবেলায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। ঘরের বাইরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখুন। সৌজন্যেঃ দেশচিত্র ডটনেট।